সুপার ম্যাস এর ব্লাক হল কিভাবে তৈরি হয়?

সুপার ম্যাস এর ব্লাক হল কিভাবে তৈরি হয়?

32 বার প্রদর্শিত
"বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (365 পয়েন্ট)
Like

1 উত্তর

বিশেষত্বই ধরা পড়বে না। কিন্তু অদৃশ্য সঙ্গীটি যদি কৃষ্ণগহর হয় তাহলে দৃশ্যমান নক্ষত্রটি ঘুরতে ঘুরতে একসময় ঘটনা দিগন্তের দিকে এগিয়ে যাবে। কৃষ্ণগহারটি তখন ঐ নক্ষত্র থেকে গ্যাস এবং অন্যান্য বস্তু গ্রাস করতে থাকবে। ফলে কৃষ্ণ গহবরে পতনশীল গ্যাসীয় বস্তুর বিদ্যুৎ-চুম্বকীয় বিকিরণ অনেক বেশি হবে ।

পৃথিবী থেকে তা ধরা পড়বে ‘এক্সরে ব্যান্ডে' (X-ray al)। তখন বােঝা যাবে যে অদৃশ্য বস্তুটি একটি কৃষ্ণগহ্বর কৃষ্ণগহবর যদি একটি ঘূর্ণায়মান নক্ষত্র থেকে সৃষ্ট হয় তাহলে তার দুই দিক একটু চাপা হবে। কেননা তার ঘূর্ণন গতিবেগ অনেক বেশি হবে। অপরপক্ষে নক্ষত্রটির যদি কোন ঘূর্ণন না থাকে তাহলে সৃষ্ট কৃষ্ণগহর হবে গােলকার । একটি ঘূর্ণন বিহীন কৃষ্ণ গহ্বরের যাবতীয় ধর্ম জানা যায় তার ভর থেকে। কিন্তু কৃষঃ গরটির যদি ঘূর্ণন থাকে তাহলে ভর এবং কৌণিক ভরবেগ থেকে তার গুণাগুণ জানা যাবে

। কোন কোন কৃষ্ণগহ্বরের আরাে একটি বৈশিষ্ট্য থাকে। তাহল বৈদ্যুতিক চার্জ। কিন্তু যে কৃষ্ণগহ্বর স্বাভাবিক নাক্ষত্রিক বিবর্তন থেকে জন্ম লাভ করে তার কোন বৈদ্যুতিক চার্জ থাকে না। প্রকৃতপক্ষে কৃষঃ গহবরে তখন বস্তুর কি দশা হবে তা-ই জানা নেই।

অন্তিম দশায় একটি নক্ষত্রকে কৃষঃগহ্বরে পরিণত হতে হলে তার ভর যে তিন সৌরভরের বেশি হতে হবে এমন কোন কথা নেই। অপেক্ষাকৃত কম ভরেও কৃষ্ণগহবর হতে পারে যদি মহাকর্ষ বলের সংগে অন্য কোন অতিরিক্ত বল ক্রিয়া করে। এই অতিরিক্ত বল পাওয়া যার সুপারনােভা বিস্ফোরণ থেকে । সাধারণত: ছয় সৌরভরের অধিক ভরসম্পন্ন নক্ষত্ররাই সুপারনােভায় পরিণত হয় । যখন সুপার নােভা বিস্ফোরণ ঘটে তখন নক্ষত্রটির অধিকাংশ বস্তুই মহাকাশে বিচ্ছুরিত হয়। কিন্তু কেন্দ্রভাগটি থেকে যায়।

কেন্দ্রভাগের উপর তখন মহাকর্ষীয় বল ছাড়াও বিস্ফোরণজাত অন্তর্মুখী একটি বাড়তি চাপ কাজ করে। ফলে কেন্দ্রভাগটি চুপসে যায়। যদি বাড়তি চাপ খুব বেশি হয়। তাহলে কেন্দ্রভাগের ভর তিন সৌরভরের কম হলেও কৃষ্ণ গহবরে পরিণত হতে পারে। চাপ কম হলে কেন্দ্রভাগটি নিউট্রন নক্ষত্রে পরিণত হয়। সনাতন বিজ্ঞান অনুযায়ী শ্বেত বামন নিউট্রন নক্ষত্র এবং কৃষ্ণগহ্বর চিরস্থায়ী । সুতরাং এমন একটি সময় আসবে যখন গ্যালাক্সির সমুদয় গ্যাস নক্ষত্র সৃষ্টিতে নিঃশেষ হয়ে যাবে এবং কালক্রমে নক্ষত্ররাও তাদের জ্বালানি শেষ করে মৃত নক্ষত্রে পরিণত হবে। তখন গ্যালাক্সি থাকবে ঠান্ডা এবং অন্ধকার।

 তার মধ্যে ভেসে বেড়াবে কতগুলাে শ্বেত বামন, নিউট্রন নক্ষত্র, কৃষ্ণ গহ্বর, গ্রহ, উপগ্রহ, গ্রহাণু, শিলা, ধূলিকণা ইত্যাদি। গতিবিতান থেকে আমরা জানি যে, মহাকর্ষীয় প্রভাবে যদি অনেকগুলো বস্তু গতিশীল হয় তাহলে পারস্পরিক বিক্রিয়ার ফলে কোন কোন বস্তুর গতিবেগ বৃদ্ধির এই পরিমাণ কখনো কখনাে এমন বেশি হতে পারে যে বস্তুটি আর মহাকর্ষীয় প্রভাবে বাধা থাকে না। মহাকর্ষীয় টানকে উপেক্ষা করে ছিটকে বেরিয়ে যেতে পারে। বস্তুটির গতিশক্তি তখন যে পরিমাণে বৃদ্ধি পাবে অন্যান্য বস্তুর গতি শক্তি তখন সামগ্রিক ভাবে ততই হ্রাস পাবে।

হিসেব করে দেখা যায় যে একটি অন্ধকার গ্যালাক্সির শতকরা প্রায় নিরানলই ভাগ বস্তু এই প্রক্রিয়ায় ১০১৮ বছরে মুক্ত হয়ে যাবে। বাকি একভাগ বস্তু তাদের শক্তি হারিয়ে কেন্দ্রে পতিত হয়ে এক বৃহদাকার কষ্টগহবর (galactic black hole) সৃষ্টি করবে একই প্রক্রিয়ায় একটি গ্যালাক্সিপুঞ্জের অন্তিম দশায় বস্তুসমুহের উবে যেতে সময় লাগবে ১০২৭ বছরের মত। গ্যালাক্সিপুঞ্জের কেন্দ্রে তখন সৃষ্টি হবে এক অতিৰ কৃষ্ণগহ্বর (super galactic black hole)। গ্যালাক্সিপুঞ্জে যদি এক শত গ্যালাক্সি থাকে তাহলে তার কেন্দ্রে যে অতিকায় কৃষ্ণ গহবরের সৃষ্টি হবে তার ভর হবে প্রায় ১০ মত সময়ে মহাবিশ্বের সg সৌরভর।

সুতরাং দেখা যাচেছ যে ১০২৭ বছরের গ্যালাক্সি এবং গ্যালাক্সিপুঞ্জের কেন্দ্রে সৃষ্টি হবে কতগুলাে অতিকায় (galactic এবং super galactic) কৃষ্ণ গহবরের যারা ক্রমাগত পরস্পর থেকে দূরে সরে যেতে থাকবে। মুক্ত আকাশে তখন ভেসে বেড়াবে নিঃসঙ্গ সব মৃত নক্ষত্র এবং অন্যান্য ক্ষুদ্র বস্তু। এসব বস্তু সম্পর্কে সনাতন পদার্থবিজ্ঞান এর চেয়ে বেশি কিছু বলতে পারে না। কিন্তু আধুনিক বিজ্ঞানের অন্যতম শ্রেষ্ঠ শাখা কোয়ান্টাম তত্ত্বের সাহায্যে দেখানাে যায় যে এই মৃত বস্তুও বিকিরণ করে নিঃশেষ হয়ে যায় । কেম্ব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক স্টফেন হকিং দেখিয়েছেন যে, আমরা যাকে কৃষ্ণ গহবর বলি তারা প্রকৃতপক্ষে ‘ক’ নয়। কৃষ্ণ গহ্বরাও খুবই সামান্য পরিমাণে বিকিরণ করে থাকে। আমরা আগেই উল্লেখ করেছি যে ‘শূন্যস্থান’ আসলে ফাকা নয় !

শূন্যস্থান হল কাল্পনিক কণা বিপরীত কণার জোড়ে পরিপূর্ণ যারা ক্রমাগত সৃষ্টি ও নিলয়ের মধ্যে চলছে। এই সব কণিকা কোন যন্ত্রে ধরা পড়ে না। তবে এদের যে অস্তিত্ব আছে তার পরােক্ষ প্রমাণ মেলে হাইড্রোজেন পরমাণুর বর্ণালী থেকে। কাল্পনিক কণিকা বিপরীত কণিকারা তাদের অস্তিত্বের জন্য অনিশ্চয়তা বিধি থেকে শক্তি লাভ করে। এসব কণিকাদের অস্তিত্ব যত কম সময়ের জন্য হবে তাদের শক্তির অনিশ্চয়তাও তত বৃদ্ধি পাবে।

এসব ক্ষণকালীন কণিকারা নিজেদের অস্তিত্বের জন্য অনিশ্চয়তা বিধি থেকে যে শক্তি ধার করে। এই প্রক্রিয়াকে বলা হয় শূন্যতার চাঞ্চল্য (vacuum fluctuation)। আমরা যদি একটি কৃষ্ণ গহবর বিবেচনা করি তাহলে তার ঘটনা দিগন্তে শূন্যতার চাঞ্চল্য দেখা দিবে। তখন যদি জোড়ের একটি কণিকা ঘটনা দিগন্তের মধ্যে পড়ে যায় তাহলে অপর কণিকাট সঙ্গীহীন হয়ে পড়ে। নিজের নিলয়ের জন্য অপর কোন বিপরীত কণিকা পায় না। কণিকাটি তখন বাস্তব রূপ লাভ করে। তখন অনিশ্চয়তা বিধির শক্তি ব্যাংক থেকে সে আর কোন শক্তি পায় না। কণিকাটিকে তখন শক্তি আহরণ করতে হয় কৃষ্ণ গহবর থেকে। এভাবেই শক্তির মাধ্যমে কৃষ্ণ গহ্বরটির ভর ক্ষুন্ন হতে থাকে। এই প্রক্রিয়াকেই বলা হয় হকিং বিকিরণ ।

এই বিকিরণের মাত্রা খুবই কম । দীর্ঘকাল ধরে ভর ক্ষুন্ন হতে হতে কৃষ্ণ গহ্বরটি অতি ক্ষুদ্র আকার ধারণ করে। তখন তার তাপমাত্রাও বাড়তে থাকে। অন্যান্য বস্তু বিকিরণের ফলে শীতলতর হয়। কিন্তু একটি কৃষ্ণ গহবর যতই বিকিরণ করবে ততই তাপমাত্রা বাড়তে থাকবে। কেননা কৃষ্ণ গহ্বরের উত্তাপ বিপরীত (inverse) ভরের উপর নির্ভরশীল । ক্রমাগত বিকিরণের ফলে কৃষ্ণ গহরটির ভর যখন শেষ পর্যন্ত অত্যন্ত অল্প হয়ে যাবে তখন ব্যাপারটা কি দাড়ামা তা খুব স্পষ্ট নয়। তবে হকিং বলেন, সম্ভবত কৃষ্ণ গহরটি হঠাৎ বিস্ফোরিত হয়ে শূন্যে মিলিয়ে যাবে।

 সেই বিস্ফোরণের শক্তি হবে কয়েক মিলিয়ন হাইড্রোজেন বোমার সমান। এই তত্ত্ব অনুযায়ী এক সৌরভরের একটি কৃষঃ গহবরের আয়ুষ্কাল ১০৬৫ বছর যেখানে একটি সুপার গ্যালাকটিক ব্ল্যাকহােলের আয়ুষ্কাল প্রায় ১০১০০ বছরের মত। কণাবাদী অভিক্রিয়ায় শুধু যে কৃষ্ণ গহবরের জীবনেই পরিবর্তন আসে তা নয় ।
উত্তর প্রদান করেছেন (365 পয়েন্ট)
আরো জান্তে বিজিট করুন http://ansunique.com/

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
20 জুন 2021 "বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Arman (365 পয়েন্ট)
1 উত্তর
21 মে 2021 "বিজ্ঞান" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Admin (4,617 পয়েন্ট)
1 উত্তর
14 জুন 2021 "সাধারণ জিজ্ঞেসা" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Admin (4,617 পয়েন্ট)
1 উত্তর
06 জুন 2021 "তথ্য ও প্রযুক্তি" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন অজ্ঞাতকুলশীল
1 উত্তর
22 মে 2021 "তথ্য ও প্রযুক্তি" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন Admin (4,617 পয়েন্ট)

17,573 টি প্রশ্ন

17,275 টি উত্তর

24 টি মন্তব্য

54,717 জন সদস্য

Answer Fair এ সুস্বাগতম, যেখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন।
14 Online Users
0 Member 14 Guest
Today Visits : 470
Yesterday Visits : 29235
Total Visits : 10424400
...