কাদিয়ানি সম্প্রদায় ও তাদের কার্যকলাপ সম্পর্কে সংক্ষেপে আলােচনা কর?

কাদিয়ানি সম্প্রদায় ও তাদের কার্যকলাপ সম্পর্কে সংক্ষেপে আলােচনা কর?

59 বার প্রদর্শিত
"ইসলাম ধর্ম" বিভাগে জিজ্ঞাসা করেছেন (4,617 পয়েন্ট)
Like

2 উত্তর

ভূমিকা : ইসলামি দাওয়াতি কার্যক্রমের বিরুদ্ধবাদিদের অপতৎপরতা নতুন নয়, এটি পূর্ব থেকেই চলে আসছে। বর্তমানেও যারা ইসলামের নামে অপতৎপরতা চালাচ্ছে, তাদের মধ্যে কাদিয়ানি সম্প্রদায় অন্যতম। 

উত্তর : ইসলামের বিরুদ্ধাচারণকারী কাফির। কাদিয়ানি সম্প্রদায় ও তাদের কার্যক্রম : কাদিয়ানি মতবাদ দ্বারা মানবরচিত কল্পনাপ্রসূত মতবাদকে বুঝানাে হয়। ভারতের কাদিয়ান নামক স্থানে জন্মগ্রহণকারী মিথ্যা নবুয়াতের দাবিদার মির্জা গােলাম আহমেদ কাদিয়ানির উদ্ভাবিত মতবাদই কাদিয়ানি মতবাদ নামে পরিচিত। তার অনুসারীদেরকে কাদিয়ানি সম্প্রদায় বলা হয়। কাদিয়ানিরা নিজেদের আহমাদিয়া মুসলিম জামাত বলে পরিচয় দেয়। এরা আহমদি জামাত, মিজায়ী এবং কাদিয়ানি নামেও পরিচিত। এরা মূলত কাফির সম্প্রদায়। গােলাম আহমদ কাদিয়ানি ১৮৮৮ সালে হঠাৎ করে নিজেকে নবী বলে দাবি করে এবং বলে যে, তার নিকট ঐশী বাণী অবতীর্ণ হয়েছে। এরপর সে মানুষদেরকে তার অনুসরণ করতে আহ্বান জানায়। অত:পর সে নিজেকে ইমাম মাহদি বলে ঘােষণা দেয়। সে ইংরেজ সরকারের আনুগত্য ও তার জন্মস্থানে হজ্ব করা ফরজ ঘােষণা করে, জিহাদকে হারাম ঘােষণা করে এবং তার দাওয়াত অস্বীকার কারীদেরকে কাফির বলে ফতােয়া দেয়। এভাবে সে ইসলাম বিরােধী আকীদা, আচার-আচরণ প্রচার ও বিভিন্ন নিয়ম-কানুন তার লেখা বিভিন্ন বইতে তুলে ধরে। ভন্ডনবী গােলাম আহমদ কাদিয়ানি বলত- "আল্লাহ আমার সম্বন্ধে বলেছেন, আমি তােমাকে রাসূল রূপে প্রেরণ করলাম।" সে আরাে বলত- "আমি যা কিছু ওহি থেকে প্রাপ্ত হই, খােদার কসম তাকে সব রকমের ক্রুটি থেকে পবিত্র মনে করি। কুরআনের ন্যায় আমার ওহি ভুলক্রুটি থেকে মুক্ত। এটা আমার ইমান ও বিশ্বাস।" ইসলামের কতিপয় নীতির সাথে তার আচার-আচরণ বা অনুষ্ঠানের সামঞ্জস্য থাকলেও নবুয়াত, ঈসা (আ.)এর পৃথিবীতে পুনরায় আগমন, ইমাম মাহদির আত্মপ্রকাশ এবং জিহাদসহ অনেক মৌলিক বিষয়ে তার বক্তব্য ও কার্যক্রম সরাসরি ইসলামের বিরােধী এবং পরিপন্থি। কাদিয়ানিদের এসব উদ্ভট ও ভ্রান্ত মতবাদের কারণে ইসলামি আইনবিদগণ তাদেরকে কাফির বলে ঘােষণা করেছে। আমেরিকা, ইউরােপসহ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে ইসলামের বিরুদ্ধে কাফির কাদিয়ানিদের অপতৎপরতা রয়েছে। তারা অমুসলিম দেশে ইসলামের নাম ব্যবহার করে দিন দিন তাদের সংখ্যা বৃদ্ধি করছে। কাদিয়ানিরা মুসলিম নয়। তারা তাদের লেখা বই-পুস্তক, ম্যাগাজিন, ও পত্র-পত্রিকার মাধ্যমে মানবরচিত কল্পনাপ্রসূত মতবাদ প্রচার করছে এবং কুরআন-হাদিসের অপব্যাখ্যাসহ ইসলামের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ও বিভ্রান্তি ছড়াচ্ছে। তাদের ছদ্মবেশী অস্তিত্ব, অপতৎপরতা ও প্রচারণা ইসলামি দাওয়াতের জন্য ব্যাপক সমস্যার সৃষ্টি করছে।

উপসংহার : পরিশেষে বলা যায়। কাদিয়ানিরা অমুসলিম কাফির। তারা ইসলাম ও মুসলমানদের শত্রু। তারা ইসলাম ও মুসলমানদের ব্যাপক ক্ষতিসাধন করছে। তাই তাদের ব্যাপারে সতর্কতা অবলম্বন করা দাঈদের একান্ত কর্তব্য।

উত্তর প্রদান করেছেন (4,617 পয়েন্ট)
প্রিয়প্রশ্ন (priyoproshno.com) হলো বাংলায় সমস্যা সমাধানের একটি অন্যতম মাধ্যম যেখান থেকে আপনি জ্ঞানঅর্জন এর পাশাপাশি প্রশ্নোত্তর এর মাধ্যমে মাসিক সম্মানী জিততে পারেন।
উত্তর প্রদান করেছেন

সম্পর্কিত প্রশ্নগুচ্ছ

1 উত্তর
1 উত্তর

17,573 টি প্রশ্ন

17,275 টি উত্তর

24 টি মন্তব্য

54,717 জন সদস্য

Answer Fair এ সুস্বাগতম, যেখানে আপনি প্রশ্ন করতে পারবেন এবং গোষ্ঠীর অন্যান্য সদস্যদের নিকট থেকে উত্তর পেতে পারবেন।
16 Online Users
0 Member 16 Guest
Today Visits : 1484
Yesterday Visits : 29235
Total Visits : 10425414
...